বাবরি মসজিদ ভেঙ্গে অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে হবে মন্দির: সুপ্রিম কোর্ট

Spread the love

অনলাইন ডেস্ক: ভারতের অযোধ্যায় বিতর্কিত জমিতে নির্মাণ করা হবে মন্দির। আর মুসলমানদের জন্য দেওয়া হবে আলাদা জমি।

শনিবার অযোধ্যা মামলায় ভারতের সুপ্রিম কোর্টের রায়ে এ কথা বলা হয়। খবর এনডিটিভির

অযোধ্যার বিতর্কিত জমিটি নিয়ে নিম্ন আদালতে মামলা দায়ের হওয়ার ঠিক ৭০ বছর পর রায় দিলো ভারতের সর্বোচ্চ আদালত।

রায়ে বলা হয়, সরকার নিয়ন্ত্রিত একটি ট্রাস্টের মাধ্যমে অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে হিন্দুদের জন্য মন্দির নির্মাণ করে দেওয়া হবে। মুসলমানদের জন্য শহরের অন্যত্র সুবিধাজনক জায়গায় ৫ একর জমি দেওয়া হবে মসজিদ নির্মাণের জন্য।

ভারতের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈর নেতৃত্বে সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ এর রায় ঘোষণা করেন। বেঞ্চের অন্য বিচারপতিরা হলেন- বিচারপতি এসএ বোবদে, ডিওয়াই চন্দ্রচূড়, অশোক ভূষণ ও এস আব্দুল নাজির।

১৯৯২ সালে কট্টর হিন্দুরা বাবরি মসজিদ ভেঙে ফেলার পর হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গায় প্রায় দুই হাজার লোকের মৃত্যু হয়েছিল।

বাবরি মসজিদ আর রাম মন্দির নিয়ে বিতর্ক কয়েক শতাব্দী ধরে। এ নিয়ে দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে বারে বারে দাঙ্গা হয়েছে। ব্রিটিশ সরকার ভেতরের অংশটা মুসলিমদের আর বাইরে চত্বরটা হিন্দুদের ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছিল। কিন্তু ১৯৪৯ সালে মসজিদের ভেতরে কে বা কারা রামের মূর্তি রেখে দেয়। মুসলিমরা তখনই প্রতিবাদ করেন এবং সরকার জমিটিকে বিতর্কিত ঘোষণা করে তালাবন্ধ করে দেয়।

এরপর জমির মালিকানা কার সেটা ঠিক করতে সেবছরই আদালতে প্রথম মামলা হয়। পরে ফৈজাবাদের জেলা আদালত ১৯৮৬ সালে তালা খুলে হিন্দুদের পূজার অনুমতি দেন। আর তখন থেকেই সেখানে আন্দোলন জোরদার হয়ে ওঠে।

২০১০ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্ট নির্দেশ দেয়, বিতর্কিত জমিটি তিনভাগ হবে- দুভাগ পাবেন হিন্দুরা আর এক ভাগ পাবে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড। এই রায়ের বিরুদ্ধে সবপক্ষই সুপ্রিম কোর্টে যায় ২০১১ সালে।  সুপ্রিম কোর্ট আদালতের বাইরে সব পক্ষকে নিয়ে সমাধানের চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তা ব্যর্থ হওয়ায় মামলাটি বিশেষ বেঞ্চ শুনানি শুরু করে। একটানা ৪০ দিন শুনানি হওয়ার পরে রায় লেখার জন্য মাসখানেক সময় নেন সুপ্রিম কোর্ট বেঞ্চ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *