সংকট কাটলেও ভয় কাটেনি ক্রিকেটারদের মনে

Spread the love

ক্রীড়া প্রতিবেদক: বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) পরিচালকদের সঙ্গে বৈঠকের পর মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে এসে ‘হার্ডলাইনে’ যান নাজমুল হাসান পাপন। বুধবার ক্রিকেটারদের সঙ্গে আলোচনায় বসে অবশ্য বিসিবি তাদের সব দাবি-দাওয়া মেনে নিয়েছেন। ক্রিকেটাররাও তাদের ধর্মঘট তুলে নিয়েছেন। যথারীতি খেলায় ফেরার কথা বলেছেন। তবে আলোচনার মাধ্যমে ধর্মঘট ‘সহজে’ মিটে গেলেও আলোচনা সহজভাবে শুরু হয়নি।

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন শুরুতেই বাংলাদেশ জাতীয় দলের স্পিন অলরাউন্ডার মেহেদি মিরাজের ওপর চড়াও হন। মিরাজকে উদ্দেশ্য করে তিনি উচ্চস্বরে বলেন, ‘মিরাজ, আমি তোমার জন্য কী করিনি, আর তুমি আমার ফোন ধরনা? আমি তোমার ফোন নাম্বার ডিলেট করে দেব। তুমি দল থেকে বাদ পড়ে গিয়েছিলে। আমি তোমাকে দলে ফিরিয়েছি। আর তুমি…।’

ক্রিকেটারদের সঙ্গে বিসিবি সভাপতির এমন রাগ অনেকের মনে ভয় ধরিয়ে দিয়েছে। তারা মনে করছেন, বিসিবি তাদের ওপর এখন আরও কড়া হবে। এখন ‘লঘু পাপে গুরু দণ্ড’ ভোগ করতে হবে তাদের। ক্রিকেটারদের এখন আতশি কাচের নিচে রাখবে বোর্ড। সংকট মেটার আগের দিন সংবাদ সম্মেলনেও পাপন কোন ক্রিকেটারকে কী ব্যক্তিগত উপকার করেছেন সেসবের ফিরিস্তি দেন। তবে বুধবার বিসিবি সভাপতি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘তাদের ওপর শুরুতে রাগ ছিল। এখন কোন রাগ-টাগ নেই।’

সাকিব সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আলোচনা ফলপ্রসু হয়েছে। তবে সেগুলো বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত খুশি কি-না বলতে পারছেন না। আলোচনা শেষে নাম প্রকাশ না করে শর্তে এক ক্রিকেটার ইএসপিএন ক্রিনইনফোকে বলেন, বোর্ড আমাদের দাবি মেনে নিয়েছে এইটুকু শুধু জানতে পেরেছি। কিন্তু বিস্তারিত কিছু আমাদের বলা হয়নি। যেমন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ম্যাচ ফি বাড়বে। কিন্তু সেটা কত তা আমরা জানি না। অন্য এক ক্রিকেটার বলেন, ‘মিরাজের ব্যাপারটা আমাদের হতাশ করেছে। যেভাবে আলোচনা শুরু হয়েছে। আমাদের বেশি কিছুর বলার সুযোগ ছিল না।’

আলোচনায় মাধ্যমে ক্রিকেট অঙ্গনের স্থবিরতা কেটেছে। তবে ক্রিকেটারদের অনেক দাবিরই সুরহা হয়নি। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ আগের মতো করে করার দাবি তুলেছেন ক্রিকেটাররা। বিসিবি সেটা মেনে নিয়েছে। তবে আলোচনায় ক্রিকেটারদের প্রশ্ন করা হয়েছে, ক্লাবগুলো টাকা না দিলে ক্রিকেটাররা কী করবেন। ক্রিকেটাররা বলেছেন, সেটা তারা নিজেরাই দেখভাল করবেন। অবকাঠামো উন্নয়ন নিয়েও ক্রিকেটারদের কিছু পরিষ্কার করা হয়নি। আলোচনা শেষে অনেক ক্রিকেটারই তাদের দাবি পূরণের ব্যাপারে আশার কথা প্রকাশ করেছেন। অনেকে আবার রাগ-হতাশা নিয়ে এবং ধাঁধাঁর মধ্যে পড়ে বৈঠক থেকে বেরিয়েছেন।

তবে কিছু কিছু ক্রিকেটার মনে করেন তারা বোর্ডকে একটা ধাক্কা দিতে পেরেছেন, ‘আমরা এক দাবিতে এতোগুলো ক্রিকেটার এক হয়েছি এটা বোর্ডকে একটা ধাক্কা দিয়েছে। তারা ভেবেছিলেন তৃতীয় দিন (ভয়ে) দাবি নিয়ে খুব বেশি ক্রিকেটার আমাদের সঙ্গে আসবে না। আন্দোলনে বোর্ড তৃতীয় দিন অবশ্যই অনেক কম ক্রিকেটার আসবে বলে প্রত্যাশা করেছিলেন। আমাদের তাই এখন দাবি বাস্তবায়নের ব্যাপারেও এক থাকতে হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *