বাংলাদেশ ধর্মীয় সম্প্রীতির দেশ হলেও এই সরকার বর্তমানে অশান্ত করে তুলেছে-মিনু

Spread the love

রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি, বাংলাদেশ ধর্মীয় সম্প্রীতির দেশ হলেও বর্তমান অনির্বাচিত সরকার তা অশান্ত করে তুলেছে। বর্তনান সরকারের আমলে কোন মানুষ নিরাপদ নয় । জনগণের ভোটে নির্বাচিত না হওয়ার তাদরে জনগণের নিকট কোন জবাবদিহিতা নাই। গতকাল বুধবার বেলা ১১টায় নগরীর মালোপাড়াস্থ বিএনপি কার্যালয়ের সামনে রাজশাহী মহানগর ও জেলা বিএনপি’র আয়োজনে ভোলার বোরহানউদ্দিনে ধর্মপ্রাণ মুসল্লেিদর উপর নির্বিচারে গুলি করে গণহত্যার প্রতিবাদ ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের হত্যাকারীদের বিচারের দাবীতে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে প্রধান অতিথিরি বক্তব্যে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য জননেতা মিজানুর রহমান মিনু এই কথা বলেন।
তিনি বলেন, বিশ্বনবী ইসালামের দিশারী সারা বিশ্বের মুসলমানদের পথ প্রদর্শক হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) কে নিয়ে নাস্তিকরা কটুক্তি করলেও সরকার নিরব থাকে। অথচ বর্তামন প্রধানমন্ত্রীর নামে কেউ সামান্য কটুক্তি করলেও তাদের আইনের আওতায় এনে জেল ও জরিমানা করা হচ্ছে। ভোলার বোরহানউদ্দিনে রসুলুলাøাহ (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তি করার প্রতিবাদ করায় পুলিশ সাধারণ জনগণ ও মুসল্লীদের গুলি করে হত্যা করেছে। তিনি আরো বলেন, এই সরকারর ভারতের দালালে পরিণত হয়েছে। প্রভুদের খুশি করতে মুসলানদের উপর নির্যাতন নেমে আসলেও সরকার প্রধান নিরব ভূমিকা পালন করেন। উল্টো অপরাধীকে বাঁচানোর জন্য আইনশৃংখলা বাহিনীকে লেলিয়ে দিয়ে জনগনের উপর নির্যাতন করছে। কটুক্তিকারী সেই নাস্তিককে দ্রুত আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবী জানান। সেইসাথে বেগম জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে সকলকে রাজপথে জীবনবাজি রেখে আন্দোলন করার আহবান জানান মিনু।
সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও রাজশাহী জেলা বিএনপি’র আহবায়ক আবু সাঈদ চাঁদ। প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য জননেতা মিজানুর রহমান মিনু। প্রধান বক্তা ছিলেন জেলা বিএনপি’র আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব বিশ্বানাথ সরকার। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এ্যাডাভোকেট শফিকুল হক মিলন, জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সহিদুন্নাহর নাহার কাজি হেনা, জেলা বিএনপি’র সদস্য ও তানোর পৌর মেয়র মিজানুর রহমান ও নওহাটা পৌর মেয়র শেখ মকবুল হোসেন।
আরো উপস্থিত ছিলেন বোয়ালিয়া থানা বিএনপি’র সভাপতি সাইদুর রহমান পিন্টু, রাজপাড়া থানা বিএনপি’র সভাপতি শওকত আলী, মহানগর বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক আসলাম সরকার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল হক রানা, বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন উজ্জল, বোয়ালিয়া থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলম মিলু, রাজপাড়া থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেন, শাহ্ মখ্দুম থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন, মতিহার থানা বিএনপি’র সভাপতি আনসার আলী, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক ডিকেন, ১নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি শহীদ আলম, সাধারণ সম্পাদক শামীম রেজা, ৩নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি ওয়াজির উজির, ৬নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি গোলাম নবী গোলাপ ও ৭নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি কচি।
এছাড়াও মহানগর যুবদলের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সুইট, জেলা যুবদলের সভাপতি মোজাদ্দেদ জামানী সুমন ও মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান রিটন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল হাসনাইন হিকোল, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল আলম সমাপ্ত, সহ-সভাপতি সুলতান আহম্মেদ, মাইনুল ইসলাম হারু, সাংগঠনিক সম্পাদক জুলফিকার রহমান ভুট্টো, মহানগর মহিলা দলের আহবায়ক রওশন আরা পপি, অধ্যাপিকা সখিনা খাতুন, রোজি, জরিনা, গুলশান আরা মমতা ও মহিলা নেত্রী উম্মে হানি, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি আসাদুজ্জামান জনি, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম জনি, মহানগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রবি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আকবর আলী জ্যাকি, নাহিন আহম্মেদ, জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি রবিউল ইসলাম কুসুমসহ বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *