বরুড়ায় আখ চাষে সাদা সোনার সপ্ন দেখছেন কৃষকেরা

Spread the love

বরুড়া (কুমিল্লা) প্রতিনিধি: কুমিল্লার বরুড়ায় আখ চাষে সাদা সোনার সপ্ন দেখছেন কৃষকেরা। এ বছর আখের বাম্পার ফলন হয়েছে। এ উপজেলার প্রায় ইউনিয়নের এলাকাজুড়ে আখ চাষের জমি। কৃষকরা লাভবান হওয়ায় দিন দিন বাড়ছে আখের চাষ।

বরুড়ার সুমিষ্ট আখের কদর রয়েছে ক্রেতাদের মাঝে। এখানকার উৎপাদিত আখ কুমিল্লার চাহিদা মিটিয়ে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ হয়ে থাকে। চৈত্র মাসে লাগানো হয় আখের চারা, আর পরিপক্ব হয় আষাঢ়ের পর থেকে। এ চার মাস বরুড়ার কৃষকরা ব্যস্ত থাকে আখ চাষ নিয়ে। বিক্রি চলে
আশ্বিন-কার্তিক মাস পর্যন্ত। লাভ বেশি হওয়ায় প্রতি বছরই আখ আবাদের জমির পরিমাণ বেড়েছেই চলছে।

উপজেলার দরগাহ নামা, বিজয়পুর, বাতাইছড়ি, ঝালগাও, এগারগ্রাম, বৈরিয়া, কামেড্ডা, শালুকীয়া, দেওড়া, ঝলম, ডেউয়াতলী, মেড্ডা, আমড়াতলী, ফলকামুড়ি, লাইজলা, দিগলগাও গ্রামে ব্যাপক আখের চাষ হয়। এ সব এলাকার আখ চাষে ফলনও হয় অনেক বেশী।

বরুড়ার অধিকাংশ কৃষক আখ চাষ করে স্বাবলম্ভী হচ্ছেন। যার ফলে কৃষকের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে। আখের প্রতি শলা উৎপাদন করতে কৃষকের খরচ হয় ২৫ থেকে ৩০ টাকা। প্রতি শলা বিক্রি হয় ৯০ থেকে ১‘শত টাকা। বেশীর ভাগ আখ জমিতেই বিক্রি করে দেন কৃষকরা। বেপারীরা সময় সুযোগ করে, প্রয়োজন অনুযায়ী ক্ষেত থেকে আখ সংগ্রহ করে কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করে।

এ বিষয়ে বরুড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বলেন, এ বছর বরুড়ায় গত বছরের তুলনায় আখের চাষ বেশী হয়েছে। আখের চাহিদা বেশি হওয়ায় বরুড়ার আশপাশের উপজেলা গুলোতেও ছড়িয়ে পড়ছে এর চাষ। লাভ বেশি হওয়ায় এ ফসলটির উৎপাদন বাড়াতে সরকার চাষিদের প্রশিক্ষনের মাধ্যমে সহযোগিতা করছে বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *