বরুড়ায় পরিত্যক্ত ঝরাজির্ন স্থাপনা এখন মৃত্যু ফাঁদে পরিনত

Spread the love

বরুড়া (কুমিল্লা) প্রতিনিধি: কুমিল্লার বরুড়ার পৌরসভায় অবস্থিত বরুড়া শহীদ স্মৃতি সরকারি কলেজ রোডস্থ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে ভূমি প্রশাসন। ভবনের ধংশাবশেষ পরিত্যক্ত ঝরাজির্ন স্থাপনা এখন মৃত্যুর ফাঁদে পরিনত হয়েছে।

সূত্র জানায়, পৌরসভার কালামুড়ী গ্রামের সিরাজুল ইসলাম ভূইয়ার ছেলে শাহিনুর ভূইয়া কলেজ রোডস্থ এলাকায় সরকারি খাস জমিতে একটি ভবন নির্মান করেন। এছাড়াও একই এলাকায় আরো কিছু অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের উদ্যোগ নেই ভূমি প্রসাশন। গত ২০১৯ সালের ফেব্রয়ারী মাসে উল্লেখিত এলাকায় একাধিক স্থাপনা উচ্ছেদ করে উপজেলা (ভূমি) প্রসাশন। তৎকালিন উচ্ছেদ অভিযান পারিচালনা করেন সহকারী কমিশনার (ভুমি) এ.কে. এম সাইফুল ইসলাম। তরিৎঘরিতে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করে ধংশাবশেষ না সড়িয়ে অভিযান সমাপ্ত করে ভূমি প্রসাশন।

সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ভবনের ধংশাবশেষ পরিত্যক্ত ঝরাজির্ন স্থাপনা এখন মৃত্যুর ফাঁদে পরিনত হয়েছে। ভবনের উপরের অংশ কিছুটা ঠিক থাকলেও, পিলারে নিচের অংশের রড কেটে দেওয়ার কারনে, ভবনটির পঞ্চাস এখনো জুলে রয়েছে। যে কোন মুহুর্তে ধমকা হাওয়া কিংবা কোন কারন ছাড়ায় পথচারীদের উপরে পরে বড় ধরনের হতাহতের ঘটনা ঘটতে পারে।

স্থানীয় একাধিক বাসিন্দা জানান, ধংশাবশেষ পরিত্যক্ত ঝরাজির্ন স্থাপনার পাশে ও ফেছনে রয়েছে প্রায় অর্ধ শতাকিধ পরিবারের বসতি। এ লাকাটিতে বসবাসরত অধিকাংশই শিক্ষ ও সরকারি বেসরকারি দপ্তরের প্রথম শ্রেনীর কর্মকর্তাবৃন্দ। তাদের চলাচলের একমাত্র রাস্তাটিই ধংশাবশেষ স্থাপনার পূর্ব পাশে ও পেছন দিয়ে চলে গেছে ভেতরের দিকে। প্রতিদিন এখানে মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক ও কমলমতি শিক্ষার্থীরা প্রাইভেট পড়তে আসার জন্য, এ রাস্তাটি বাধ্যতামূলক ব্যবহার করতে হয়। বলা যায় যে, বসবাসকারী বাসিন্দা ও শিক্ষার্থীরা তাদের জীবনের ঝুঁিক নিয়ে এ পথে চলাচল করতে হয়।

এ ব্যাপারে স্থানীয় এক বাসিন্দা নাম প্রকাশে অনচ্ছুক তিনি জানান, ভবনের ধংশাবশেষ সড়ানোর জন্য তারা নিজেদের থেকে উদ্যোগ নিয়েছিলো। অবৈধ স্থাপনার মালিক পক্ষ পুনরায় এটি দখল করে রেখেছে বলে তারা জানান। সে জন্য ধংশাবশেষের কংকির সড়াতে তারা বাধ্যগ্রস্থ হন। তিনি এ বিষয়ে বরুড়া উপজেলা (ভূমি) প্রশাসনের সহযোগীতা ও হস্তক্ষেপ কামনা করেন। এ ধংশাবশেষের কংকির ও আবর্জনা যেনো এখান সড়িয়ে নেওয়া হয়। তারা কোনরকম দুর্ঘনার মুখমোখি হতে চায় না বলে মন্তব্য করেন।

এ বিষয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি), নাহিদা সুলতানা বলেন, কোরকম দুর্ঘটনা যেনো না হয়, সে বিষয়ে সরজমিনে পরিদর্শন শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *