22.2 C
New York
Thursday, September 16, 2021

Buy now

spot_img

চীন-কোভ্যাক্স ঘিরে টিকার রোডম্যাপ

অনলাইন ডেস্ক: দেশে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস প্রতিরোধে গণটিকাদান কর্মসূচিতে ব্যাপক সাড়া মিলেছে। শহর থেকে গ্রাম পর্যন্ত ছয় দিনব্যাপী চলমান গণটিকাদান কর্মসূচির আওতায় দুই দিনেই লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি মানুষ টিকা নিয়েছেন। এতে প্রাথমিকভাবে কিছুটা স্বস্তি মিললেও সমন্বয় ও পরিকল্পনার অভাবে এ কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। জনস্বাস্থ্যবিদরা দ্রুততম সময়ে সব মানুষকে টিকার আওতায় আনার তাগিদ দিয়েছেন। তবে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, টিকার প্রাপ্যতার ভিত্তিতে এ কর্মসূচি চলবে। কারণ অন্য দেশের ওপর ভিত্তি করে কর্মসূচি চলছে। দিনক্ষণ অনুযায়ী টিকা আসছে না। সুতরাং ঘোষণা দিয়ে টিকাদান কর্মসূচি চালানো সম্ভব হবে না; যখন যে পরিমাণ টিকা আসবে, তার ওপর ভিত্তি করে কর্মসূচি চলবে।

এ অবস্থায় টিকা নিয়ে এক ধরনের অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। প্রথম ডোজ গ্রহণকারী ব্যক্তিরা নির্ধারিত সময়ে দ্বিতীয় ডোজ পাবেন কিনা তা নিয়ে অনেকের মধ্যে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে সমকাল টিকার সার্বিক বিষয় নিয়ে খোঁজখবর নিয়েছে। কোন উৎস বা দেশের ওপর ভিত্তি করে বাংলাদেশ টিকাদান কর্মসূচি এগিয়ে নিতে চাইছে এবং কোন মাসে কী পরিমাণ টিকা আসতে পারে, তাও জানার চেষ্টা করা হয়েছে।
টিকা কার্যক্রম সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকা স্বাস্থ্য বিভাগের কোর কমিটির দুই সদস্যের সঙ্গে কথা বলে প্রতীয়মান হয়েছে, চীন এবং টিকার বৈশ্বিক জোট কোভ্যাক্সকে কেন্দ্র করেই মূলত দেশে টিকাদান কর্মসূচি পরিচালিত হবে। কোভ্যাক্সের মাধ্যমে টিকা পাওয়া এতদিন বন্ধ থাকলেও এখন তা চালু হয়েছে। বৈশ্বিক জোটটি আশ্বস্ত করেছে, এখন থেকে নিয়মিত টিকা পাবে বাংলাদেশ। একই সঙ্গে চীনের কাছ থেকেও টিকার আশ্বাস পাওয়া গেছে। এর ভিত্তিতেই পথনকশা (রোডম্যাপ) করে টিকাদান কর্মসূচি এগিয়ে নিতে চাচ্ছে সরকার।

আরও ১৫ কোটি টিকা পাওয়ার আশা :চলতি বছরের ২৭ জানুয়ারি দেশে টিকাদান কর্মসূচি শুরুর পর গতকাল পর্যন্ত দুই কোটি ৭৩ লাখ ৪৪ হাজার টিকা পেয়েছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে ভারত থেকে এক কোটি তিন লাখ ডোজ, চীন থেকে ৯৮ লাখ ডোজ, যুক্তরাষ্ট্র থেকে ৫৬ লাখ ৬২০ ডোজ এবং জাপান থেকে ১৬ লাখ ৪৩ হাজার ৩০০ ডোজ টিকা এসেছে। যুক্তরাষ্ট্র ও জাপান টিকা দিয়েছে কোভ্যাক্সের মাধ্যমে। আর চীন গতকাল মঙ্গলবার সিনোফার্মের ১৭ লাখ ডোজ দিয়েছে কোভ্যাক্সের আওতায়।
এসব টিকা থেকে দেশে এখন পর্যন্ত এক কোটি ৪৭ লাখ ৬৯ হাজার ৪৪৭ জনকে প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে। আর দ্বিতীয়

ডোজ দেওয়া হয়েছে ৪৯ লাখ দুই হাজার ১৭৩ জনকে। সব মিলিয়ে টিকার এক কোটি ৯৬ লাখ ৭১ হাজার ৬২০ ডোজ ব্যবহার করা হয়েছে। মজুদ রয়েছে ৭৬ লাখ ৭২ হাজার ৩৮০ ডোজ।
তবে চীনের সিনোফার্মের দেড় কোটি ডোজ কেনার বিষয়ে চুক্তি হয়েছে। এ টিকার ৫০ লাখ ডোজ এরই মধ্যে দিয়েছে চীন। সিনোফার্মের আরও ছয় কোটি ডোজ কেনার বিষয়ে সরকার চুক্তি করতে যাচ্ছে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নীতিগত অনুমোদন দিয়েছেন। চীনও সায় দিয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে চলতি বছরের মধ্যেই চীন থেকে সাত কোটি ডোজ টিকা পাওয়া যাবে। আর কোভ্যাক্স থেকে মোট জনগোষ্ঠীর ২০ শতাংশ হিসেবে ছয় কোটি ৮০ লাখ ডোজ টিকা পাওয়ার কথা রয়েছে। এ টিকার ৮৯ লাখ ৪৩ হাজার ৯২০ ডোজ এরই মধ্যে দেশে এসেছে। বাকি প্রায় ছয় কোটি ডোজ টিকা চলতি বছরের ডিসেম্বর এবং আগামী বছরের জানুয়ারির মধ্যে আসবে। এ ছাড়া ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে তিন কোটি ডোজ কেনার চুক্তি হলেও মাত্র ৭০ লাখ ডোজ পাওয়া গেছে। বাকি দুই কোটি ৩০ লাখ ডোজ দ্রুতই পাওয়ার আশা করা হচ্ছে। সব মিলিয়ে আগামী বছরের জানুয়ারি মধ্যে আরও ১৫ কোটি ৩০ লাখ ডোজ টিকা পাওয়ার আশা করছে বাংলাদেশ।

স্বাস্থ্য বিভাগের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সমকালকে বলেন, চলতি আগস্টে কোভ্যাক্সের আওতায় ৩৪ লাখ ডোজ টিকা আসবে। এর মধ্যে জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ১৪ লাখ ডোজ এবং যুক্তরাষ্ট্র থেকে মডার্নার ২০ লাখ ডোজ টিকা আসবে। আগামী দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে চীন থেকে সিনোফার্মের ২০ লাখ ডোজ আসবে। এর মধ্যে কেনা ১০ লাখ ডোজ এবং চীন সরকারের উপহার হিসেবে ১০ লাখ ডোজ। চলতি মাসেই চীন থেকে সিনোফার্মের কেনা টিকার আরও ৫০ লাখ ডোজ আসবে। গতকাল কোভ্যাক্সের আওতায় সিনোফার্মের ১৭ লাখ ডোজ টিকা এসেছে। সব মিলে চলতি মাসে আরও এক কোটি ৪ লাখ ডোজ টিকা আসছে। এ ছাড়া আগামী সেপ্টেম্বরে কোভ্যাক্সের আওতায় যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফাইজারের টিকার ৬০ লাখ ডোজ আসবে। এ ছাড়া চীন থেকে সিনোফার্মের কেনা টিকার এক থেকে দেড় কোটি ডোজ আসার কথা রয়েছে। সব মিলিয়ে সেপ্টেম্বরে দুই কোটি ১০ লাখ ডোজ টিকা আসতে পারে।

আগামী অক্টোবর ও নভেম্বরে চীনের সিনোফার্মের কেনা টিকার দুই কোটি করে মোট চার কোটি ডোজ আসবে। একই সঙ্গে কোভ্যাক্সের টিকার বাকি অংশও আগামী জানুয়ারির মধ্যে চলে আসবে। একই সময়ের মধ্যে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে কেনা টিকার বাকি দুই কোটি ৩০ লাখ ডোজও পাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন ওই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, সেরাম ইনস্টিটিউট চলতি মাস থেকে কেনা টিকার একটি অংশ বাংলাদেশকে দেওয়ার কথা জানিয়েছে। তবে নির্দিষ্ট দিনক্ষণ জানায়নি।

টিকা কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত অপর এক কর্মকর্তা বলেন, স্ম্ফুটনিক-ভি টিকার এক কোটি ডোজ কিনতে কাগজপত্র চূড়ান্ত করে রাশিয়ায় চিঠি পাঠানো হয়েছে। কিন্তু রাশিয়া থেকে এখনও কোনো জবাব পাওয়া যায়নি। রাশিয়া কবে নাগাদ কী পরিমাণ টিকা দিতে পারবে, তা নিশ্চিত করার পর পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। একই সঙ্গে জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকার সাত কোটি ডোজ কিনতে আলোচনা চলছে। আগামী বছরের জুলাইয়ের পর থেকে ওই টিকা আসা শুরু করবে।

সরবরাহ বাড়ানোর তাগিদ বিশেষজ্ঞদের :বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও ভাইরোলজিস্ট অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম সমকালকে বলেন, গণটিকাদানের ছয় দিনব্যাপী ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে গ্রামে টিকাদান কার্যক্রম শুরুর পর দেখা যাচ্ছে, শহরের মতো গ্রামের মানুষের মধ্যেও টিকা নিয়ে আগ্রহ রয়েছে। টিকার প্রয়োজনীয় সরবরাহ থাকলে মানুষ টিকা নিতে আগ্রহী- এটি প্রমাণ হয়েছে। সুতরাং কীভাবে টিকার সরবরাহ বাড়ানো যায়, সরকারের সেই চেষ্টা করা উচিত।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদের সাবেক ডিন অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ সমকালকে বলেন, টিকা নিয়ে মানুষের মধ্যে সাড়া পড়েছে। তাই টিকার প্রয়োজনীয় জোগান নিশ্চিত করার দিকে সরকারকে মনোযোগী হতে হবে। টিকার সবগুলো উৎসের সঙ্গে যোগাযোগ করে দ্রুততম সময়ে যত বেশি পরিমাণে টিকা আনা যাবে, তত বেশি মানুষকে দ্রুততম সময়ে টিকার আওতায় আনা সম্ভব হবে। এর মধ্য দিয়ে করোনা প্রতিরোধ লড়াইয়ে ইতিবাচক ফল আসবে।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক সমকালকে বলেন, যত দ্রুত সম্ভব সব মানুষকে টিকার আওতায় আনতে চাই। টিকা উৎপাদনকারী সব দেশ ও উৎসের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। তারা টিকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। যখন যে পরিমাণ টিকা হাতে আসবে, সে অনুযায়ী টিকাদান কার্যক্রম চলবে। বাড়তি টিকা থাকায় ছয় দিনের কার্যক্রম (ক্যাম্পেইন) চালানো হচ্ছে। আবারও বড় পরিমাণ টিকার মজুদ হওয়া মাত্রই একইভাবে কার্যক্রম হবে।

সম্পর্কিত

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সোস্যাল প্লাটফর্ম

27,000FansLike
15,000FollowersFollow
2,000SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ সংবাদ