সামাজিক দুরত্ব মানছেনা কেউ করোনার সঙ্কা মাটিরাঙ্গায়

Spread the love

আবুল হাসেম,মাটিরাঙ্গা প্রতিনিধিঃ বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ও মৃত্যু থেমে নেই। প্রতিদিন প্রতিনিয়ত বাড়ছে এর সংখ্যা। এ ভাইরাস প্রতিরোধে মাস্ক পরিধান ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলার সরকারি নির্দেশনা থাকলেও মাটিরাঙ্গা উপজেলার প্রায় সর্বত্রই তা মেনে চলছে না অনেকেই। মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসন ও আইনশৃংখলা বাহিনীর উপস্থিতিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় ও লোকজনের সমাগম কম ঘটলেও তারা চলে যাবার পরপরই শুরু হয় জনসমাগম ও আড্ডা।

এছাড়া কাঁচাবাজার মুদি দোকান ও ঔষধের দোকান ছাড়া সকল দোকানপাট বন্ধ ঘোষনার নির্দেশনাও থাকলেও মাটিরাঙ্গার পাড়ার দোকানগুলোতে বেশ জমে উঠেছে ক্রয়-বিক্রয় আড্ডা। যেখানে সামাজিক সামাজিক দুরত্বের বজায় রাখছেন না কেহই।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহি অফিসার বিভীষণ কান্তি দাশ এবং সহকারি কমিশনার (ভুমি) ফারজানা আক্তার (ববি) উভয়ে মাটিরাঙ্গার বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার মাধ্যমে সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করার চেষ্টা করলেও আদালত চলে যাওয়ার পর পরই পুর্বের অবস্থায় ফিরে যায় জনগন। বাজারে প্রয়োজনের তুলনায় দর্শনার্থীর ভিড় বেশী লক্ষ্য করা যায়।

প্রতিদিন মাটিরাঙ্গা সেনা জোনের সেনাবাহিনীগণ মাইকিং করে বিনা কারণে আসা জনগনকে চলে যাওয়া এবং সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করার কথা বল্লেও জনগন যেন সেনাবাহিনীর সাথে লুকোচুরি খেলছে। সেনাবাহিনী চলে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই লোকজন পুনর্বার বাজারে গুরাফিরা করছে। তাছাড়া অকারনে ঘুরাফিরার জন্য সেনাবাহিনী অনেক কে কান ধরে উঠবস করেছে মর্মে লক্ষ্য করা গেছে।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) ফারজানা আক্তার (ববি) বলেন,করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে আমরা বার বার ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করছি। আইন অমান্যকারিদের বিধান অনুযায়ী  জরিমানা করছি। স্থানীয়দের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি অতি জরুরী না হয় এ মহামারি ঠেকানো কোন মতেই সম্ভব নয়।

এ বিষয়কে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহি অফিসার বিভীষণ কান্তি দাশ বলেন,জনগনকে সচেতনতা সৃষ্টি করতে প্রচার প্রচারণার মাধ্যমে জানান দেয়া হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের পাশাপাশি আইনশৃংখলা বাহিনীর সরকারি নির্দেশ বাস্তবায়নে পদক্ষেপ গ্রহন করছে। মাটিরাঙ্গার বহু এলাকা রয়েছে তারা এ মহামারির ভয়বহতা সম্পর্কে অবগত নন। তাছাড়া প্রতিদিন লোকেদের সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত না করার দায়ে ভ্রাম্যমান আদালতের কার্যক্রম পরিচালিত ও জরিমানা করা হচ্ছে। মাটিরাঙ্গার জনপদকে রক্ষা করতে জনগনকে আরো বেশী সচেতন হতে হবে বলে মনে করেন তিনি।