ঝিনাইদহে পর্নোগ্রাফী মামলা না তোলায় বাদীর উপর হামলা

Spread the love

আতিকুর রহমান টুটুল, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের শৈলকুপায় পর্নোগ্রাফী মামলা তুলে না নেওয়ায় মামলার বাদী রাবেয়া খাতুনের উপর হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রাবেয়া খাতুন চরধলহরাচন্দ্র গ্রামের ইনসান আলীর স্ত্রী ও একই গ্রামের রবিউল ইসলামের মেয়ে। সোমবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার ধলহরাচন্দ্র গ্রামে তার উপর হামলা হয়। এ সময় পিপিলা খাতুন নামে আরো এক মহিলা আহত হয়।

আহতদের শৈলকুপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আহত রাবেয়া খাতুনের বাবা রবিউল ইসলাম জানান, ২০১৮ সালের মার্চ মাসে তার মেয়ে রাবেয়ার সাথে চরধলহরাচন্দ্র গ্রামের ইয়াকুব মন্ডলের ছেলে ইনসান আলীর সাথে বিয়ে হয়।

বিয়ের পরপরই সে সিঙ্গাপুর চলে যায়। ইনসান সিঙ্গাপুর থাকায় তার ভাই সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুর রশিদের ছেলে ইউনুচ আলী রাবেয়াকে বাবার বাড়ি চলে যেতে বলে এবং বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিতে থাকে।

২০১৯ সালের এপ্রিল মাসে ইউনুচ ও তার সহযোগীরা তার মেয়ের কিছু ছবি কম্পিউটারাইজড করে গ্রামের গাছে গাছে ঝুলিয়ে দেয়। এ ঘটনায় গত বছরের ৯ মে শৈলকুপা থানায় রাবেয়া খাতুন বাদী হয়ে ইউনুচসহ কয়েক ব্যক্তির নামে পর্নোগ্রাফী নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা করেন।

এ মামলা তুলে নিতে সোমবার সকালে আব্দুর রশিদ, ইউনুচ, আজিজসহ কয়েক ব্যক্তি তার মেয়ের উপর হামলা চালায় বলে অভিযোগ। এদিকে সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুর রশিদ জানান, রাবেয় তার ছোট ভায়ের স্ত্রী। বেশ কিছুদিন আগে রাবেয়া তার ছেলের নামে ষড়যন্ত্র মূলক একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলা তুলে নিতে তার উপর কোন হামলা হয়নি। শৈলকুপা থানার সেকেন্ড অফিসার উপ পরিদর্শক মাহফুজুর রহমান জানান ধলহরাচন্দ্র গ্রামে দু-দল গ্রামবাসির মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গ্রামটিতে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। তবে রাবেয়া কি কারণে আহত হয়েছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।