নাটোরের শাহ শহিদুল মোল্লা পরিবারের বায়াসকে হত্যা চেষ্টায় ১জন আটক

Spread the love

ওবায়দুল ইসলাম রবি, রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহী বিভাগের নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম উপজেলার শাহ ও মোল্লা পরিবারের দ্বন্দ্বে দুইজন গুরুত্বর আহত হয়েছে। আহতরা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) চিকিৎসাধীন রয়েছে। থানা কর্তৃক আসামী শহীদুল ইসলাম আটক হয়েছে।

পূর্বের বংশিও মর্যদা এবং জমির জের ধরে আজ মঙ্গলবার সকাল অনুমান ৯টার সময় উপজেলার মশিদা গ্রামের জলিল শাহের ছেলে শহিদুল ইসলাম মোল্লা পরিবারের মকবুল হোসেনের ছেলে গোলাম সাকলায়িন বায়াসকে ধারালো দেশিয় অস্ত্র (ফালা ও হাসুয়া) মেরুদন্ডের নিচে এবং মাথায় আঘাত করে হত্যার চেষ্টা করে।

ওই সময় আহতের ছেলে নাফিস বাধা দিতে গলে তাকেও মারধর করে প্রতিপক্ষ। ওই সময় স্থানীয়রা আহত বায়াসকে তৎক্ষনাত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে যায়। কর্তব্যরত চিকিৎসক রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) ভর্তি করার পরামর্শ দেন। শাহ পরিবারের সাদ্দাম, মুলাফ শাহ এবং বক্কর সম্মিলিত ভাবে গোলাম সকালায়ন বায়াসকে হত্যা চেষ্টা করে বলে জানায় আহতের মাতা ও পরিবারের স্বজনরা।

উক্ত ঘটনা জানার পর একটি বিশেষ অভিযানে আসামী শহীদুলকে আটক করা হয়েছে এবং পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় একটি মামলা রুজু করেছে বলে জানান ওসি দিলিপ কুমার দাস । রামেক হাসপাতলের চিকিৎসক ডাক্তার হান্নান গনমাধ্যদকে জানান, আজ দুপুর ১২.১৫ টার সময় গুরুত্বও আহত গোলাম সাকলাইনকে ৪ নং ওর্য়ডের ০৩ নং বেডে ভর্তি করা হয়েছে। আহত ব্যাক্তির সন্ধায় অপারেশন করা হবে। এবিষয়ে পুলিশ কর্তৃক একটি মামলা হয়েছে। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) সহকারী পরিচালক সাইফুল ফেরদৌস মোহাম্মদ আতার্তুক বলেন,সঠিক সময়ে হাসপাতালে না ভর্তি করলে অধিক রক্ত ক্ষরনে আহত ওই ব্যাক্তির মৃর্তু হতে পারতো।