সড়ক নেই, তুবও ব্রীজ!

Spread the love

দীপক সরকার, বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ার সোনাতলায় প্রায় ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি ব্রিজ নির্মাণ করলেও তা জনগণের কাজে আসছে না। ওই ব্রিজের পূর্ব পাশে মাত্র ২শ গজ সড়কে মাটি না দেওয়ায় পথচারীদের সুবিধার পরিবর্তে এখন সেটি জনদুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে সড়ক তৈরীর ব্যবস্থা না থাকলেও তবুও ব্রীজ নির্মাণ করা হয়েছে, তবে এটা কোন স্বার্থে করা হয়েছে এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সচেতনমহলে।

সূত্র জানায়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নে মধ্যদিঘলকান্দী গ্রামে ১৪ লাখ ৮৫ হাজার ২৩৭ টাকা ব্যয়ে ১৮ ফুট দৈর্ঘ্যরে একটি ব্রিজ নির্মাণ করলেও তা জনগণের কাজে আসছে না। ওই ব্রিজের পূর্ব পাশে মাত্র ২শ গজ সড়কে মাটি দিলেই ব্রিজটি জনসাধারণের যাতায়াতের সুবিধা হতে পারত সেখানে। সেটি না হয়ে উল্টো ব্রিজটি জনগণের কোনো কাজেই আসছে না। ফলে প্রায় ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে তৈরি ব্রিজটি এখন অব্যবহৃত পড়ে আছে।

মধ্য দিঘলকান্দী থেকে চকচকিয়া রেল ব্রিজ পর্যন্ত ওই এলাকার কৃষক তাদের জমিতে কৃষি পণ্য উৎপন্ন করে বাজারজাতকরণে রাস্তাটি ব্যবহার করে থাকেন। ওই সড়ক দিয়ে কোনো রকমে একটি ভ্যান যাতায়াত করতে পারলেও সম্প্রতি ব্রিজের পূর্ব পাশে বন্যার পানির প্রচন্ড স্রোতে ভেঙে গিয়ে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এমনকি ব্রিজের পূর্ব পাশে সড়কটি নিশ্চিহ্ন হয়েছে। এছাড়াও দিঘলকান্দী গ্রামের প্রায় ৫ হাজার লোকের যাতায়াতের পাশাপাশি আশপাশের আরও ৭/৮টি গ্রামের ২০ হাজার মানুষ ওই পথ দিয়ে যাতায়াত করেন।

এ ব্যাপারে উপজেলার জোড়গাছা ইউপি চেয়ারম্যান রোস্তম আলী মণ্ডল জানান, বর্তমান সরকারের আমলে ওই স্থানে ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। সড়ক নির্মাণে প্রকল্প প্রনয়ণ করে বরাদ্দের জন্য পাঠানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা(পিআইও) মো. জিয়াউর রহমান জানান, প্রায় ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে সম্প্রতি ওই স্থানে ব্রিজ নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। তবে শুষ্ক মৌসুমে এ সড়ক নির্মাণ করা হবে। তাছাড়া সড়কটি নির্মিত হলেই ভূক্তভোগী এলাকাবাসীদের সাময়িক সমস্যার সমাধান হবে।