‘সুযোগ পেলে অবশ্যই বড় পর্দায় কাজ করব

Spread the love

অনলাইন ডেস্ক: যে কোনো কাজের জন্য একটা হোমওয়ার্ক জরুরি। মাসের ৩০ দিন যদি অভিনয় করি, তাহলে কোনো কাজই পরিকল্পনা মাফিক হবে না। একই ধরনের গল্প ও চরিত্রে অভিনয়ও করতে চাই না। তাছাড়া লকডাউনের পর করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে গেছে- এমনও নয়। মাঝে যে কাজগুলো করেছি, অনেকে সতর্ক থেকেই করতে হয়েছে। এসব কারণেই অন্যদের তুলনায় আমাকে কাজ কম করতে দেখা যাচ্ছে।

ধারাবাহিকের তুলনায় একক নাটক ও টেলিছবিকে এত প্রাধান্য দেন কেন

যত দিন একটি ধারাবাহিক নাটকের অভিনয় করব, ততদিনে বেশ কয়েকটি নাটক ও টেলিছবির কাজ শেষ করা সম্ভব। এতে অনেক চরিত্র ও ভিন্ন সব গল্পে কাজ করার সুযোগ থাকে। এজন্যই একক নাটক ও টেলিছবিতে কাজ বেশি করি।

অভিনয় ছাড়াও নাটক লেখেন। নাট্যকার হওয়ার ইচ্ছা কি আগে থেকেই ছিল?

নাট্যকার হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে গল্প লেখা শুরু করেছি, তা কিন্তু নয়। লেখালেখির নেশা আগে থেকেই ছিল। ইচ্ছা ছিল সাংবাদিকতা বিষয়ে পড়াশোনা করার। কিন্তু পরিবারের সবার ইচ্ছা শেষ পর্যন্ত অন্য একটি বিষয়ে পড়াশোনা করতে হয়েছে।

আপনার লেখা ‘ফেক প্রেম’ নাটকটি অনেকের প্রশংসা কুড়িয়েছে। এখন কী তহালে নিয়মিত নাটক লিখেবেন?

‘ফেক প্রেম’র আগেও দুটি নাটক লিখেছি। একান্ত ভালো লাগা থেকেই সেগুলো লেখা। মনের মধ্যে যখন কোনো গল্পের আনাগোনা চলে, তখনই লেখার চেষ্টা করি। তাই নিয়মিত নাটক লিখে যাব- এমন প্রতিশ্রুতি দিতে পারছি না।

অভিনেতার পাশাপাশি মডেল হিসেবে পরিচিত। কোন পরিচয় বেশি ভালো লাগে?

দুই পরিচয়েই ভালো লাগা কাজ করে। দর্শকের নজর কাড়তে মডেলিং এবং অভিনয় দুটি কাজই চ্যালেঞ্জ নিয়ে করতে হয়। মানছি, এখন অভিনয় নিয়ে বেশি ব্যস্ত। তার পরও বিজ্ঞাপনের কাজের প্রতি একবিন্দু ভালো লাগা কমেনি।


বড় পর্দায় অভিনয়ের স্বপ্ন অনেকের মতো আমারও আছে। ‘অস্তিত্ব’ ছবির পর হয়তো আরও কিছু কাজ করতে পারতাম। কিন্তু যে ধরনের কাজ করতে চাই, তেমন ছবির প্রস্তাব পাইনি। ভালো গল্প এবং ভিন্ন ধরনের চরিত্রে অভিনয় সুযোগ পেলে অবশ্যই বড় পর্দায় কাজ করব।
বেছে করার কারণ প্রতিবার দর্শকের কাছে নতুন রূপে নিজেকে তুলে ধরার জন্য। বাছাই কাজ সবই দর্শকের মনের মতো হবে, এমন কোনো কথা নেই। ভালো কাজ যেহেতু হচ্ছে, সেহেতু বাছাই করে কাজ করতে তো কোনো দোষ নেই।