দক্ষিণ এশিয়ার সাদা মনের একজন মানুষ আব্দুল হক

Spread the love

আব্দুল হক দেশের একজন খ্যাতনামা ব্যবসায়ী, শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবক। কুমিল্লা জেলার বরুড়া উপজেলাধীন আমড়াতলী -ফলকামুড়ী গ্রামে তাঁর জন্ম। তিনি সুশিক্ষা প্রসারের লক্ষ্যে বরুড়াস্থ নিজ গ্রামে শাহের বানু আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন, যার সম্পূর্ণ ব্যায়ভার নিজেই বহন করে আসছেন।

বাংলাদেশস্থ জিবুতি প্রজাতন্ত্রের কনসাল আব্দুল হক। বাংলাদেশ রিকন্ডিশন্ড ভেহিকলস ইম্পোর্টার্স অ্যান্ড ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশন-বারভিডার সফল তিনবারের সভাপতি। ব্যবসায়ী শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর পরিচালক তিনি। হকস বে’ অটোমোবাইলসের স্বত্বাধিকারী । জাপান -বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি ‘র সাবেক সভাপতি ।

এছাড়া সমাজ সেবার জন্য ১৯৯৬ এর দিকে “প্রযুক্তি পীঠ” নামে একটি এনজিও এর মাধ্যমে শিক্ষা প্রকল্প, ক্ষুদ্র ঋন প্রকল্প, আত্মকর্মসংস্থান, স্বাস্থ্য প্রকল্প সহ বিভিন্ন প্রকল্প চালু রয়েছে। ১৯৯৮ সালের দিকে রাষ্ট্র নামে একটি মাসিক পত্রিকা বের করতেন ।

আবদুল হক ১৯৭১ সনে পেশাগত কারণে চট্টগ্রামে অবস্থানকালে সক্রিয়ভাবে মহান মুক্তিযুদ্ধে (চট্টগ্রামের সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর সাথে) অংশ গ্রহন করেন। তিনি কোন রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পৃক্ত নন।

বিআরটিএ, জনতা ব্যাংক এবং রাষ্ট্রায়াত্ব মোবাইল ফোন কোম্পানী টেলিটক এর সাবেক পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করা চৌকষ এ ব্যবসায়ীর অন্যতম কৃতিত্ব জাপান ও বাংলাদেশের মধ্যকার ব্যবসা ও বিনিয়োগ সংক্রান্ত কার্যক্রম ত্বরান্বিত করা ।

নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের ‘গভীর সমুদ্র বন্দর কর্তৃপক্ষ আইন’ এর খসড়া প্রণয়ন কমিটির সদস্য ছিলেন আব্দুল হক।

দলমত, রাজনীতির উর্দ্ধে উঠে নিঃস্বার্থভাবে জাতীয় অর্থনীতি, সুশিক্ষা বিস্তার, মানব উন্নয়ন, জাপান-বাংলাদেশের মধ্যকার সম্পর্ক উন্নয়নের স্বার্থে নিরন্তরভাবে সক্রিয় থাকার অনন্য দৃষ্টান্ত আবদুল হক।

ইঞ্জিনিয়ার মোঃ রাজিব হাসান, লেখক ও সাংবাদিক ।