মিন্নিকে উন্নত চিকিৎসা দেওয়ার দাবি

বরগুনা প্রতিনিধি: বরগুনায় চাঞ্চল্যকর রিফাত শরীফ হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার নিহতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে উন্নত চিকিৎসা দেওয়া প্রয়োজন বলে আবারও দাবি করেছেন তার পরিবার ও আইনজীবী।

তাদের দাবি, মিন্নিকে পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদের নামে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়েছে। এ কারণে তিনি খুবই অসুস্থ। তবে জেল কর্তৃপক্ষ বলছে, সুস্থ আছেন মিন্নি।

মিন্নির বাবা মো. মোজাম্মেল হোসেন কিশোর বলেন, আমি আইনজীবীর মাধ্যমে মিন্নির চিকিৎসার জন্য আদালতে আবেদন করেছি। বিজ্ঞ আদালত বলেছেন, মিন্নি অসুস্থ হলে আদালত চিকিৎসার ব্যবস্থা করবেন। কিন্তু জেল কর্তৃপক্ষ তা মানছে না। আমি এবং আমাদের আইনজীবী যতটুকু দেখেছি মিন্নি সুস্থ নয়। তারপরও আমরা কারা কর্তৃপক্ষের ওপর ভরসা রাখছি। তবে মিন্নির অসুস্থতার কারণে কিছু হলে সে জন্য কারা কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে।

বরগুনা জেলা কারাগারের জেল সুপার মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, মিন্নি কারাগারে আসার পর থেকে আমাদের দায়িত্বরত ডিপ্লোমা নার্স নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করছেন এবং আমি নিজেও প্রতিদিন অন্তত দুইবার তার খোঁজ-খবর নিচ্ছি। এরপরও প্রয়োজন হলে কারাগারের নির্ধারিত চিকিৎসক চিকিৎসার ব্যবস্থা করবেন। তবে মিন্নি বর্তমানে সুস্থ আছেন দাবি করে জেল সুপার আরও জানান, আদালতের চিকিৎসা সংক্রান্ত আদেশ তিনি হাতে পেয়েছেন।

জেলা কারাগারের নির্ধারিত চিকিৎসক ও বরগুনা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডা. মো. হাবিবুর রহমান বলেন, তাকে মিন্নির চিকিৎসার ব্যাপারে কেউ এখনও কিছু জানাননি।

গত ১৬ জুলাই মিন্নিকে নিজ বাড়ি বরগুনা সদর উপজেলার নয়াকাটা থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যায় পুলিশ। পরে ওই দিন রাত ৯টার দিকে মিন্নিকে গ্রেফতার দেখানো হয়। পরের দিন আদালতের মাধ্যমে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। রিমান্ড শেষ হওয়ার আগেই ১৯ জুলাই বরগুনা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মিন্নি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিলে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

এরপর থেকেই মিন্নির পরিবার দাবি করে আসছে, পুলিশ মিন্নিকে জিজ্ঞাসাবাদের নামে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়েছে। এমনকি ভয়ভীতি ও চাপ প্রয়োগ করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতেও বাধ্য করেছে।

২০ জুলাই বরগুনা জেলা কারাগারে মিন্নির সঙ্গে দেখা করে তার বাবা জানিয়েছিলেন, মিন্নি অসুস্থ, দাঁড়িয়ে কথা বলতে পারে না। তার দ্রুত উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন।

মিন্নি শারীরিক ও মানসিকভাবে খুবই অসুস্থ দাবি করে গত ২২ জুলাই তার আইনজীবী মো. মাহবুবুল বারী আসলাম বরগুনা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চিকিৎসার আবেদন করেন। আদালত শুনানি শেষে আদেশ দেন, মিন্নির চিকিৎসার প্রয়োজন হলে জেল কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নেবে।

মিন্নির আইনজীবী ফের বুধবার কারাগারের ভেতরে গিয়ে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের বলেন, মিন্নির শরীরের অবস্থা ভালো নয়, তার শরীরে ব্যথা আছে। রাতে ঘুমাতে পারেন না। তিনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত এবং খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাঁটেন। তাই মিন্নির দ্রুত চিকিৎসা করানো প্রয়োজন।

মতামত