সাকিব-তামিমদের ব্যাট হাসলে ৩১৫ খুব দূরে নয়!

অনলাইন ডেস্ক: শুরুটা দেখে মনে হচ্ছিল ৩৮০-৪০০ রানের পথেই এগুচ্ছে ভারত। তবে সময়মতোই রানের লাগামটা টেনে ধরে বাংলাদেশের বোলাররা। শেষ পর্যন্ত ভারতকে ৩১৪ রানের মধ্যেই বেধে ফেলেন সাকিব-মুস্তাফিজরা। জয়ের জন্য বাংলাদেশের দরকার ৩১৫ রান। সাকিব-তামিম-মুশফিকুর রহিমদের ব্যাটের ছন্দটা ধারাবাহিকতা বজায় রাখলে জয় কিন্তু খুব দূরে নয়।

সাকিব আল হাসানের ব্যাট এবারের আসরে খাপখোলা তলোয়ার হয়ে উঠেছে। গত ছয় ম্যাচে ৪৭৬ রান করেছেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। রানের গড় ৯৫! ভারতের বিপক্ষেও জ্বলে উঠতে হবে সাকিবকে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিংবা ইংল্যান্ডের বিপক্ষের সাকিবকে যদি ভারতের বিপক্ষেও দেখা যায় তাহলে কিন্তু ভারতবধ অসম্ভব নয়।

রান সংখ্যায় সাকিবের চেয়ে ঢের পিছিয়ে থাকলেও ব্যাট হাতে কিন্তু মোটেও কম যাননি মুশফিকুর রহিম। ৬ ম্যাচে করেছেন ৩২৭। ভারতের বিপক্ষে এই ম্যাচে মিডল অর্ডারে বড় ইনিংস খেলতে হবে মুশিকে। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ না থাকায় এই ম্যাচে বাড়তি চাপ থাকছে মুশফিকের ওপর। চাপের মধ্যেই চ্যাম্পিয়নরা নিজেদের সেরাটা বের করে আনেন। আজ সেরাটা দিতে হবে মুশফিককেও। 

বিশ্বকাপের শুরুতে খুব একটা রানের মধ্যে না থাকলেও রানে ফিরেছেন তামিম ইকবাল। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তামিমের ব্যাটের দুত্যি দেখা গেছে। আজ ‘ডু অর ডাই’ ম্যাচে তামিমকে সেরা ছন্দে ফিরতে হবে। ভারতীয় পেসারদের এই ম্যাচে খেলার দায়িত্বটা তাকেই নিতে হবে। 

বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচটা বাদ দিলে পুরো আসরেই ‘ফ্লপ’ শো দেখিয়েছেন সৌম্য সরকার। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অপরাজিত ৯৪ রান করার পর লিটন দাসও কিন্তু বেশ নিস্প্রভ হয়ে গেছেন। আজ রানে ফিরতে হবে এই দুজনকেও। সাব্বিরকেও নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দিতে হবে। 

সব সমীকরণ মিললে বার্কিংহামে ভারতের বিপক্ষে জয় পাওয়াটা দূরহ হবে না। আর এমনটা হলে বিশ্বকাপে টিকে থাকবে বাংলাদেশের স্বপ্ন।

মতামত