বিএসএমএমইউতে আন্দোলনের মুখে নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা স্থগিত

অনলাইন ডেস্ক: আন্দোলনের মুখে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) মেডিকেল অফিসার পদে মৌখিক পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। গত ১২ মে মেডিকেল অফিসার পদে লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশের পরপরই তাতে অনিয়মের অভিযোগ তুলে নিয়োগ স্থগিত করে পুনরায় পরীক্ষা নেওয়ার দাবিতে আন্দোলনের ডাক দেন চাকরিপ্রার্থী চিকিৎসকরা। তাদের দাবি উপেক্ষা করে সোমবার মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া শুরু করলেও দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার পিছু হটে কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ডা. কনক কান্তি বড়ূয়া সমকালকে বলেন, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে মৌখিক পরীক্ষা আপাতত স্থগিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে সিন্ডিকেটের সভা আহ্বান করা হয়েছে। ওই সভা থেকে যে সিদ্ধান্ত আসবে, তার আলোকেই পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, লিখিত পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মঙ্গলবার সকাল থেকে আওয়ামী লীগপন্থি চিকিৎসকদের সংগঠন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা যোগ দেন। তারাও লিখিত পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে মিছিল বের করেন। একপর্যায়ে তারা উপাচার্যের সঙ্গে সাক্ষাৎ করার জন্য প্রশাসনিক ভবনের সামনে জড়ো হন। উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে স্লোগান দিতে থাকলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। এ সময় পুলিশের সঙ্গে আন্দোলনকারীদের ধস্তাধস্তি হয়। আন্দোলনকারীরা উপাচার্যের অফিস লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। পরে তাদের একটি প্রতিনিধি দল উপাচার্যের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে। আন্দোলনকারীরা বেরিয়ে যাওয়ার পর উপাচার্য মৌখিক পরীক্ষা সাময়িক স্থগিতের ঘোষণা দেন। তবে আন্দোলনকারী চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, পুরো পরীক্ষা বাতিল না হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চলবে।

গত ২০ মার্চ বিএসএমএমইউতে মেডিকেল অফিসার ১৮০ ও ডেন্টাল চিকিৎসকের ২০ পদে লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ওই পরীক্ষায় আট হাজার ৫৫৭ জন চিকিৎসক অংশ নেন। এরপর ১২ মে লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। ফল প্রকাশের পরপরই অনিয়মের অভিযোগ তুলে তা বাতিলের দাবি করে শতাধিক চিকিৎসক বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। এরপর বিভিন্ন সময় ফল বাতিলের দাবি জানিয়ে ক্যাম্পাসে তারা বিক্ষোভ-সমাবেশ করে আসছেন।

মতামত