সেই কার্ডিফে টাইগাররা

ছবি: টাইমস অব ইন্ডিয়া

অনলাইন ডেস্ক: ইংল্যান্ডে ঘরের মাঠের আবহ পাচ্ছে বাংলাদেশ দল। কার্ডিফে সেটা আরও বেশি হওয়ার কথা। ওয়েলসের এই স্টেডিয়াম নিয়ে টাইগার সমর্থকদের মধ্যে প্রচলিত আছে, ‘কার্ডিফে হারে না বাংলাদেশ’। বিশ্বকাপে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচ এই কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনে খেলবে টাইগাররা।

বৃহস্পতিবার লন্ডন থেকে কার্ডিফে রওনা করেন মাশরাফিরা। সড়ক পথে তিন ঘন্টার যাত্রা। স্থানীয় সময় দুপুর ১২টার দিকে ক্রিকেটার এবং কোচিং স্টাফরা টিম বাসে চড়েন। স্টিভ রোডসের শিষ্যরা আগামী ৮ জুন বিশ্বকাপের স্বাগতিক ও র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষে থাকা ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হবে। এই ইংল্যান্ডকে অবশ্য টাইগাররা শেষ দুই বিশ্বকাপে হারিয়ে দিয়েছিল।

‘সৌভাগ্যের’ স্টেডিয়াম কার্ডিফে সাকিব-মুস্তাফিজরা খেলবেন মরগানের দলের বিপক্ষে। এখানে ২০০৫ সালে অস্ট্রেলিয়াকে হারায় টাইগাররা। মোহাম্মদ আশরাফুল খেলেন একশ’ রানের দারুণ এক ইনিংস। তরুণ আশরাফুল তখন তার ক্রিকেট প্রতিভা দুর্দান্তভাবে জানান দেন অজি বধ করে। এই কার্ডিফেই ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির এক ম্যাচে ম্যাজিক দেখিয়ে নিউজিল্যান্ডকে হারায় বাংলাদেশ। সাকিব আল হাসান এবং মাহমুদুল্লাহ দারুণ সেঞ্চুরি করে দলকে জয় এনে দেন।

তবে এবার কাজটা কতটা সহজ হবে তা বলা কঠিন। আগের দুই বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডকে ভিন্ন কন্ডিশনে হারান সাকিবরা। প্রথমটি ২০১১ বিশ্বকাপে, ভেন্যু ছিল চট্টগ্রামে। পরেরটি অ্যাডিলেডে, ২০১৫ সালে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপে। এবারের বিশ্বকাপ তো খোদ ইংল্যান্ডের মাঠেই।

ওদিকে পাকিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে হেরেছে ইংল্যান্ড। জয় ভিন্ন তাই কিছু ভাবার নেই সামনে তাদের। ইংল্যান্ড পেসার মার্ক উড যেমনটা বলেছেন, ‘প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ হোক কিংবা অস্ট্রেলিয়া- জয়ই একমাত্র লক্ষ্য।’

প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুর্দান্ত জয়ে আত্মবিশ্বাসী মাশরাফি বাহিনী। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে কিউইদের সঙ্গে দারুণ লড়াই করে ২ উইকেটের হারে কিছুটা হতাশার ছায়া তাদের ওপর। অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন অবশ্য বলেছেন, ‘আত্মবিশ্বাস অটুট রয়েছে। কার্ডিফে টিম টাইগার তাই সর্বোচ্চটা দিয়েই খেলবে।’

মতামত