আওনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তথা ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে নানান অনিয়মের অভিযোগ

ইসমাইল হোসেন (জামালপুর) সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি : জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার অধীনস্থ ৪নং আওনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তথা ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে নানান অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে বলে তৃণমূল সূত্রে জানা যায়।

প্রতিবারের মত এবারও ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সরকারি অনুদান ভিজিএফ কর্মসূচীর চাল বিতরণ নিয়ে যে অসঙ্গতি পরিলক্ষিত হয়েছে তাহা খুবই অমানবিক ও অসন্তোষজনক। পরিষদের গুদাম ভর্তী চাল রয়েছে কিন্তু নেয়ার লোক নেই এবং জনগণের নগণ্য অনুপস্থিতি বলে দেয় তাদের দুর্নীতির চরম বাস্তবতা কতটুকু ।

বারান্দায় চেয়ার টেবিল নিয়ে বসা থাকা চাল বিতরণ কারীদের মধ্যে ৬নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রাজা মিয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি বিক্ষুব্ধ হয়ে বলেন ভিজিএফ চালের কার্ড নিয়ে আমরা বসে আছি। যে আসবে সে পাবে, যে আসবেনা সে পাবেনা। আমরা বাড়ী বাড়ী গিয়ে কার্ড দিতে পারবনা। এমন নগ্ন উক্তির শক্তির উৎস জানতে চেয়ারম্যান বিল্লালে হোসেনকে ফোন দিলে তিনি আওনা ইউনিয়নের ভিজিএফ কার্ড সম্পর্কে বলেন, আমি ২১১০ টি কার্ড পেয়েছি তন্মধ্যে ১৪০০ কার্ড নিয়ে গেছে নেতারা,বাকিগুলো

আমি মেম্বারদের সাথে নিয়ে বিতরণ করছি কিন্তু জনগণের উপস্থিতি বৃষ্টির জন্য কম বলে জানান তিনি। ওদিকে অনুসন্ধিৎসু বার্তা বাহকদের তথ্যানুসন্ধানে জানা যায় তৃণমূল পর্যায়ে গ্রামের অসহায় হতদরিদ্র মানুষগুলো জানেন না কভে কখন ভিজিএফের চাল দিচ্ছে ইউপি পরিষদে। বাটিকামারি ৫নং ওয়ার্ডের বিপ্লব হোসেন(৪৫) মোতালেব হোসেন (৩৮) ও আনছার আলী(৪০) জানান চেয়ারম্যান মেম্বার হতে তো আর আমাদের ভোট লাগেনি।

তাই তারা জনগণের চিন্তা করেনা। সরকার জনগণের জন্য যা কিছু দেয় তারা নিজের সম্পদ বলে মনে করেন। আমরা সরকারি অনুদানের কথা যদি কখনো বলতে যাই, তখন চেয়ারম্যান তথা মেম্বারেরা বলেন আমরা টাকা দিয়ে নির্বাচিত হয়েছি, তোমাদের ভোটে নয়। সুতরাং কোন অনুদান তথা সেবা পেতে চাইলে টাকার বিনিময়েই নিতে হবে। এমন অসহায়ত্ব হতশার কথা জানান আওনা ইউনিয়নের তৃণমূলের অসহায় হতদরিদ্র জনগণ।

মতামত