বড়লেখায় মহিলা আইনজীবি খুন: গ্রেফতার ইমাম ১০ দিনের রিমান্ডে, বিক্ষোভ ও মানববন্ধন অব্যাহত

আব্দুস সামাদ আজাদ ,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি :বড়লেখায়ট মহিলা আইনজীবি আবিদা সুলতানা (৩৫) হত্যা ঘটনায় নিহতের স্বামী শরীফুল ইসলাম বসু মিয়া (৪০) সোমবার রাতে গ্রেফতার ইমামসহ চার জনের নাম উল্লেখ এবং কয়েকজনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে থানায় হত্যা মামলা রুজু করেছেন। এ মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তানভির আহমদ, তার স্ত্রী হালিমা সাদিয়া ও মা নেহার বেগমকে মঙ্গলবার দুপুরে পুলিশ আদালতে সোপর্দ করে ১৫ দিনের রিমান্ড প্রার্থনা করে। বিজ্ঞ আদালত প্রধান আসামী তানভীরের ১০ দিনের এবং বউ-শ্বাশুড়ির ৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।


এদিকে মহিলা আইনজীবির নির্মম হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে মঙ্গলবারও বিক্ষোভ মিছিল, প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসুচি পালন করেছেন বড়লেখা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের আইনজীবি ও আইনজীবি সহকারীরা। সমাবেশে বিভিন্ন শ্রেণী ও পেশার মানুষ তাদের সাথে একাত্বতা ঘোষণা করেন। অ্যাডভোকেট আবিদা সুলতানার খুনের প্রকৃত রহস্য উদঘাটন এবং খুনিদের দ্রুত গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবী জানিয়ে বড়লেখা আদালতের প্রধান ফটকের সম্মুখে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। অ্যাডভোটেক দীপক চন্দ্র দাশের সভাপতিত্বে ও অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমানের পরিচালনায় প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অ্যাডভোকেট আফজল হোসেন, ইয়াছিন আলী, গোপাল চন্দ্র দত্ত, শৈলেশ চন্দ্র রায়, হারুনুর রশীদ, সুব্রত কুমার দত্ত, আইনজীবি সহকারী সুনাম উদ্দিন প্রমূখ।রোববার সকাল ১১টা থেকে রাত ৮টার মধ্যে যেকোন এক সময় বড়লেখায় পৈত্রিক বাসায় নির্মমভাবে খুন হন মৌলভীবাজার জেলা আইনজীবি সমিতির সদস্য ও জজকোর্টের নিয়মিত আইনজীবি অ্যাডভোকেট আবিদা সুলতানা। তিনি উপজেলা কাঠালতলী মাধবগুল গ্রামের মৃত হাজী আব্দুল কাইয়ুমের বড় মেয়ে। হত্যাকান্ডের পরই ওই বাসার অপরাংশের ভাড়াটিয়া স্থানীয় মসজিদের ইমাম তানভীর আহমদ (৩৪) বাসায় তালা ঝুলিয়ে স্ত্রী ও মাকে শ্বশুড়বাড়ি পাঠিয়ে পালিয়ে যায়।

রোববার রাতেই বড়লেখা থানা পুলিশ পলাতক ইমামের স্ত্রী হালিমা সাদিয়া (২৮) ও মা নেহার বেগমকে (৫৫) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে যায়। সোমবার দুপুরে শ্রীমঙ্গল পুলিশ পলাতক ইমাম তানভীরকে বরুনা এলাকা থেকে গ্রেফতার করে বড়লেখা থানা পুলিশের নিকট হস্তান্তর করে।থানার ওসি মো. ইয়াছিনুল হক জানান, প্রধান আসামী তানভীরের ১০ দিনের এবং স্ত্রী ও মায়ের ৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। পলাতক আসামী গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে পুলিশ নির্মম এ হত্যাকান্ডের ক্লু উদ্ধারে সক্ষম হবে বলে তিনি আশাবাদী।

মতামত