রমজানের শুরুতেই নরসিংদীতে সবজির বাজার চড়া

মো: শাহাদাৎ হোসেন রাজু, নরসিংদী : সবজির জেলার হিসেবে পরিচিত নরসিংদীতে রমজানের শুরুতে জেলার বিভিন্ন বাজারে সবজির দাম  বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ-তিনগুণে পরিলক্ষিত হচ্ছে।  ক্রেতাদের অভিযোগ রমজান মাসকে  পুঁজি করে মধ্য সত্ত্বভুগি একটি সিন্ডিকেট নিজেদের ইচ্ছামত জেলায় উৎপাদিত বেশ কিছু সবজির বাড়তি দামে বিক্রি করছে। ফলে বেশীর ভাগ লোকের কিছু কিছু সবজি ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে চলে গেছে। আর সবজির ঊর্ধ্বমুখী দামের কারণে অস্বস্তিতে রয়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষেরা। তবে ব্যবসায়ীদের দাবী গত সপ্তাহের শিলাবৃষ্টিসহ প্রাকৃতিক দুযোগের কারণে জেলায় সবজির উৎপাদন কম ও অন্যান্য সবজির সরবরাহ কম হওয়ায় প্রায় প্রতিটি সবজির দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। 

মঙ্গলবার জেলার নরসিংদী বড় বাজার পশ্চিম কান্দা পাড়াস্থ বউ বাজার, বটতলা বাজার, হোসেন বাজার, ইউএমসি মিল গেইট বাজার, বাঁশবাজার, বটতলা বাজার, ভেলানগর. বাজার, শাপলা চত্বর বাজার, শিবপুর বাজার, মনোহরদী বাজার, রায়পুরা বাজার, রাধাগঞ্জ বাজার, হাসনাবাদ বাজার, মাধবদী বাজার, ঘোড়াশাল বাজার, পলাশ বাজারসহ প্রায় প্রতিটি   বাজারসহ বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে, ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় প্রতিকেজি টমেটো ৬০-৮০ টাকা। রমজানের আগে বিক্রি হতো ৪০-৫০।  শসা  বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকায় যা রমজানের আগে বিক্রি হতো ৩০-৪০। প্রতিকেজি পটল ৫০ থেকে ৬০, রমজানের আগে যা ছিল ৩০-৪০ টাকা। সজনে ৬০ থেকে ৮০ আটি যা আগে ২০-২৫ টাকায় বিক্রি হতো। বেগুন ৬০ থেকে ৮০ টাকা, যা আগে ছিল ২০ থেকে ৪০ টাকা।  শিম ৪০ থেকে ৬০, ধুন্দুল ৭০ থেকে ৮০, মুলা ৪০ থেকে ৫০, বরবটি ৬০ থেকে ৭০, কচুর লতি ৭০ থেকে ৮০, করলা ৬০ থেকে ৭০, গাজর ৩০ থেকে ৪০, ঢেঁড়স ৫০ থেকে ৬০ টাকা, যার প্রত্যেকটি সবজিই অধেক দামে বিক্রি হতো। কাঁচামরিচ ৬০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

প্রতিটি লাউ আকার ভেদে বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকায়। যা আগে অধেকেরও কম দামে বিক্রি হতো।  এছাড়াও লাল শাক, পুঁই শাক, ও মিষ্টি কুমড়ার দাম দুই-তিনগুণ বেশী দামে বিক্রি হচ্ছে।ভেলানগর বাজারের সবজি বিক্রেতা মহসীন বলেন, শুধু মাত্র পিয়াজ ও আলুর দাম ৫থেকে ১০ টাকা ছাড়া অন্যান্য সকল সবজির দামই ২০ থেকে ৪০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে।সপ্তাহের শিলাবৃষ্টিসহ প্রাকৃতিক দুযোগের কারণে জেলায় সবজির বিভিন্ন সবজি ক্ষেতে ক্ষতি হওয়ায় ও অন্যান্য সবজির সরবরাহ কম হওয়ায় ফরিয়ারা সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে সিন্ডকেটের মাধ্যমে দাম বাড়িয়ে বাজার নিয়ন্ত্রন করছে তারা। ফলে প্রত্যেকটি সবজি বেশ চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। এতে রমজানের শুরুতে সাধারণ ক্রেতাদের নাভিশ্বাস উঠেছে।

মাধবদী কাঁচাবাজারের ক্রেতা আহসান হাবীব বলেন রমজানে যেসব সবজির চাহিদা বেশি থাকে সেগুলোর দাম রমজানের একদিন আগ থেকেইবাড়িয়ে দিয়েছে ব্যবসায়ীরা।প্রতিবছরই রোজার আগে বাজারে কঠোর তদারকির কথা বলা হলেও বাস্তবে তার প্রতিফলন দেখা যায় না। মাঝ থেকে ফরিয়ারা খুব সহজেই  দু’পয়সা কামিয়ে নিচ্ছে।শুধু সবজি নয়, রমজান উপলক্ষে মজুদদাররা প্রতিটি নিত্যপণ্য মজুত করে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে অতিরিক্ত দামে বিক্রি করছে।

মতামত