‘মানুষের তো খেয়ে কাজ নেই এই ছবি ভাইরাল করবে’

অনলাইন ডেস্ক: বয়স ৭৬। কয়েক মাস পরই পা দিবেন ৭৭ এ। এই বয়সেও আলো ছড়িয়ে বেড়াচ্ছেন অভিনয়ে। নিয়মিত করছেন অভিনয়। করছেন বিজ্ঞাপনও। এর বাইরে যা করছেন সেটা  হয়ে যাচ্ছে ভাইরাল। সম্প্রতি হয়েছেন  একটি ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদকন্যা। যাতে ওয়েস্টার্ন লুকে হাজির হয়েছেন তিনি। প্রচ্ছদের সেই ছবিগুলো অনলাইনে প্রকাশের পরই হয়েছে ভাইরাল। এ বয়সে এমন নান্দনিকভাবে উপস্থিত হয়ে রীতিমত চমকে  দিয়েছেন শোবিজ ও শোবিজের বাইরের মানুষদের। তিনি দিলারা জামান। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া অভিনেত্রী। 

লাইফ স্টাইল ম্যাগাজিন ‘আইস টুডে’র মার্চ সংখ্যার প্রচ্ছদে  জমকালো পোশাক, ছিমছাম মেকআপ, গাঢ় লিপস্টিকে ভিন্ন এক দিলারা জামানকে দেখেছেন দর্শকরা।  অসাধারণ সেই ছবি নিয়েই আলোচনা হচ্ছে সোশাল মিডিয়ায়। ভাসছেন প্রশংসায়। 

ফ্যাশন হাউস জুরহেমের স্যুট-প্যান্ট তিনি পরেছেন  এ অভিনেত্রী। তার মেকআপ ও হেয়ার স্টাইল করা হয়েছে আউরা বিউটি লঞ্জ-এ। গলায় মুক্তার মালা ও কানে হিরের দুল এবং কাটিং চুলে দেখাচ্ছিল ২৫ বছর বয়সী গর্জিয়াস লেডি। 

ম্যাগাজিন আইস টুডে’র মার্চ সংখ্যায় প্রচ্ছদ কন্যা দিলারা জামান

জানা গেছে, গেল মাসের ২০ তারিখে হয়েছে ফটোশুট, ফটোশুটের ধারণা এবং নির্দেশনা গৌতম সাহা’র। এছাড়া ফটোগ্রাফে ছিলেন রিয়াদ আশরাফ, ফ্যাশন কো-অর্ডিনেটর আসিফ সোলায়মান।

চমক লাগানো এমন প্রচ্ছদকন্যা হয়ে এবারই কিন্তু প্রথম নয় তার। এর আগে ২০১৭ সালেও প্রচ্ছদকন্যা হয়ে আলোচিত হয়েছিলেন তিনি। হলেন এবারও।  ছবিটি ফেসবুকে খুব আলোচিত হচ্ছে। প্রচুর মানুষ শেয়ার করছে, কমেন্ট কমেন্টে প্রশংসা । কেমন লাগছে প্রশংসা পেয়ে। প্রশ্ন করতেই হেসে দিলারা জামান বলেন, মানুষের তো আর খেয়ে কোন কাজ নেই এ ছবি নিয়ে এতো মাতামাতি করবে। তবে কিছুটা বিশ্বাসও হচ্ছে। সবাই ফোন করে এ কথাই বলছে। আইস টুডের অফিসে ডেকে নিয়েও আমাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে। বিষয়টি বেশ ইনজয় করেছি আমি। 

মার্চে ৭৭ এ পা দিবেন। ২৫ বছর বয়সী যুবতী কীভাবে হলেন? উত্তরে পাল্টা প্রশ্ন করেন এ অভিনেত্রী। বলেন, কই ২৫ বছর? ৭৭ বছরের একজন বুড়োকে কী আর মেকাপ করে যুবতী বানাতে পারে? তবে ছবিটিগুলো গর্জিয়াস হয়েছে। আমারও ভালো লেগেছে। তবে ছবিতে আমাকে ওয়েস্টার্ণ বুড়ি দেখাচ্ছে। ফারজানা শাকিলটা পুরোপুরি বিদেশে বুড়িদের মতো করে সাজিয়ে দিযেছে।  

১৯৬৬ সালে ত্রিধরা নাটকের মাধ্যমে অভিনয়ের শুরু করেন দিলারা জামান। অভিনয় করেছেন চলচ্চিত্রেও। ১৯৯০-এর দশকে তিনি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘চাকা’ ও ‘আগুনের পরশমণি’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। পরবর্তীতে ‘ব্যাচেলর’, ‘মেড ইন বাংলাদেশ’, ‘চন্দ্রগ্রহণ’, ‘প্রিয়তমেষু’ ও ‘মনপুরা’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ১৯৯৩ সালে শিল্পকলায় অবদানের জন্য তিনি বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রদত্ত সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদকে ভূষিত হন।২০০৮ সালের ‘চন্দ্রগ্রহণ’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি   শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। 

মতামত