নরসিংদীতে সাত বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ

মো: শাহাদাৎ হোসেন রাজু, নরসিংদী প্রতিনিধি:  নরসিংদীতে দ্বিতীয় শ্রেণীতে পড়ুয়া সাত বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার (২১ জানুয়ারি) দুপুরে শহরতলীর হাজীপুর বৌবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। শিশুটিকে নরসিংদী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ ঘটনায় ধর্ষিতা শিশুর বাবা বাদি হয়ে নরসিংদী সদর মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন।ধর্ষিতার পারিবারিক সূত্রে জানা যায়,  ধর্ষিতা শিশু স্থানীয় হাজীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীতে পড়ে। তাঁর বাবা নরসিংদী শহরের একটি বাজারে মাছ বিক্রি করেন। সোমবার দুপুরে শিশুটি বিদ্যালয় থেকে বাড়িতে ফিরে বাড়ির উঠানে খেলতে যায়। এসময় প্রতিবেশি উত্তম দাস শিশুটির মুখ চেপে ধরে নিজ ঘরে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। এতে শিশুটির যৌনাঙ্গ দিয়ে রক্ত ঝরতে থাকে। আহত অবস্থথায় শিশুটি ছাড়া পেয়ে বাড়ীতে এসে  তাঁর মাকে ঘটনাটি জানায়।

পরে তাঁর মা আহত অবস্থায় শিশুটিকে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে। পাশাপাশি শিশুটির বাবা বাদি হয়ে উত্তম দাসকে আসামি করে নরসিংদী সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। অভিযুক্ত উত্তম দাস হাজীপুর বৌবাজার মালিপাড়া এলাকার রতন দাসের ছেলে। সে একটি তেলের কারখানায় কাজ করে।এ ঘটনায় নরসিংদী সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক রোজী সরকার জানান, শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিক্ষা-নিরীক্ষার পর ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলা যাবে।হাসপাতালে শিশুটির মা বলেন, এ ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তের পরিবারের লোকজন আপোষ মীমাংসার প্রস্তাব দিয়ে মামলা না করার জন্য চাপ দেয়। কিন্তু আমরা এ ঘটনার বিচার চাই।নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সৈয়দুজ্জামান বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদি হয়ে অভিযুক্ত উত্তম দাসকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হচ্ছে। 

তাঁর মা আহত অবস্থায় শিশুটিকে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে। পাশাপাশি শিশুটির বাবা বাদি হয়ে উত্তম দাসকে আসামি করে নরসিংদী সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। অভিযুক্ত উত্তম দাস হাজীপুর বৌবাজার মালিপাড়া এলাকার রতন দাসের ছেলে। সে একটি তেলের কারখানায় কাজ করে।এ ঘটনায় নরসিংদী সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক রোজী সরকার জানান, শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিক্ষা-নিরীক্ষার পর ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলা যাবে।

হাসপাতালে শিশুটির মা বলেন, এ ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তের পরিবারের লোকজন আপোষ মীমাংসার প্রস্তাব দিয়ে মামলা না করার জন্য চাপ দেয়। কিন্তু আমরা এ ঘটনার বিচার চাই।নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সৈয়দুজ্জামান বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদি হয়ে অভিযুক্ত উত্তম দাসকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হচ্ছে। 


মতামত