বস‌ন্তের অ‌গ্নি‌শিখা পলাশ ফুল


মাই‌কেল দাশ,রাঙ্গ‌ু‌নিয়া প্র‌তি‌নি‌ধি • পলাশ গাছের প্রধান আকর্ষণ তার ফুল। এই গাছের অনেক ঔষধি গুণও রয়েছে।এই ফুলের আরো একটা নাম আছে- অরণ্যের অগ্নিশিখা।পলাশ ফোটা বসন্ত দিনের মায়াময় রূপের বাহার নিয়ে রচিত হয়েছে হাজারো রচনা।

এই গাছের পাতা কিন্তু সারা বছর থাকে না। শীত আসলেই সব পাতা ঝরে গিয়ে গাছটি একেবারে ন্যাড়া হয়ে যায়। কিন্তু বসন্তকাল আসতে না আসতেই গাছটি গাঢ় লাল রঙের ফুলে ভরে ওঠে।পলাশ ফুল রাঙ্গু‌নিয়া উপ‌জেলা,পৌরসভা,ইউ‌নিয়নের সড়‌কের গাছগু‌লো‌তেও ফু‌টে‌ছে।

পাতা জন্মানোর আগে, যখন কেবল ফুল ফুটতে শুরু করে, তখন পলাশ গাছ একদম লাল হয়ে যায়। আর ফুলগাছ হলেও গায়ে-গতরে পলাশ গাছ বেশ বড়োই। তখন মনে হয়, বনে আগুন লেগেছে। তাই পলাশকে বলে অরণ্যের অগ্নিশিখা। পলাশ ফুল দেখতে অনেকটা সীমফুলের মতো। ফুলের কুঁড়ি অনেকটা বাঘের নখের মতো, কিংবা বলতে পারো কাঁকড়ার পায়ের মতো দুই ভাগে বিভক্ত। পলাশও কিন্তু ঔষধি ফুল; মানে এই ফুলও নানা রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়।পলাশ বসন্তজুড়েই মুগ্ধতা ছড়ায়। সংস্কৃতিতে ফুলটি কিংসুক নামে আর মনিপুরী ভাষায় পাঙ গোঙ নামে পরিচিত

মতামত