‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ যখন বিবাহিত

মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার প্রথম শর্ত অনুযায়ী প্রতিযোগীকে অবিবাহিত হতে হয়। কিন্তু সম্প্রতি ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ ঘোষণা করা জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলের বিয়ে হয়েছিল বলে জানা গেছে।

২০১৩ সালে এসএসসি পরীক্ষা শেষে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় চন্দনাইশ বড়মা ত্রাহিমেনকা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল। বর চন্দনাইশ পৌর এলাকার চুন্নু মিয়ার ছেলে মনজুর উদ্দীন (রানা)। বর্তমানে রানার চন্দনাইশ পৌর এলাকায় ভিআইপি ক্লথ স্টোর অ্যান্ড টেইলার্স নামে দোকান রয়েছে। চন্দনাইশ পৌরসভার কাজি অফিস সূত্র বিষয়টি জানিয়েছে।

বিয়েতে ৮ লাখ টাকার কাবিনের উসুল ধরা হয় ৩ লাখ। বিয়ের উকিল ছিলেন জান্নাতুলের বাবা তাহের মিয়া। বিয়ের প্রায় তিন মাস পর তাদের ডিভোর্স হয়।

বরমা ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য নওশা মিয়া বলেন, ২০১৩ সালে জান্নাতুলের বিয়ে হয়েছিল। দুই-আড়াই মাস পর তাদের ডিভোর্স হয়ে যায়। এরপর থেকে জান্নাতুল পরিবারের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে চট্টগ্রাম ও ঢাকায় বসবাস শুরু করে।

জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলের বিয়ের বিষয়টি স্বীকার করেছেন স্থানীয় কাজী শফি উদ্দিন। তিনি নিজে জান্নাতুল ও রানার বিয়ে পড়িয়েছিলেন।

কাবিননামায় স্বামী-স্ত্রী সম্পর্কে যেসব তথ্য রয়েছে- ‘নাম: জান্নাতুল নাঈম, জন্ম: ২২/০৪/১৯৯০, পিতা: আবু তাহের, মাতা: রেজিয়া বেগম, গ্রাম: শেবন্দি, বরমা, চন্দনাইশ, চট্টগ্রাম। অপরদিকে, এভ্রিলের স্বামী নাম: মনজুর উদ্দীন (রানা), জন্ম: ২১/০৩/২০১৩, পিতা: চন্নু মিয়া, মাতা রেজিয়া বেগম, গ্রাম: চন্দনাইশ, জেলা: কুড়িগ্রাম

চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার ৫ নম্বর বরমা ইউনিয়নের সেরন্দি গ্রামের রাউলিবাগ এলাকার কৃষক পরিবারে জন্ম জান্নাতুল নাঈমের। বাবা তাহের মিয়া ও মা রেজিয়া বেগম। চার ভাই-বোনের মধ্যে সবার ছোট তিনি।

মতামত